বাংলাদেশের বিদ্যুৎ খাত

সর্বশেষ আপডেট:

বিদ্যুৎ সাধারণ জ্ঞান:

  • দেশের একমাত্র বিদ্যুৎ সঞ্চালন সংস্থার নাম – পাওয়ার গ্রিড কোম্পানি অব বাংলাদেশ লিঃ (PGCB)
  • আবাসিক 3 phase voltage = 440V
  • আবাসিক single phase voltage = 230V
  • নিউক্লিয়ার বিদ্যুৎ: U-235 (238 নয়)
  • বাংলাদেশে সর্বোচ্চ ক্ষমতার বিদ্যুৎ সঞ্চালন লাইন বা ট্রান্সমিশন ভোল্টেজ: ৪০০ কিলোভোল্ট (400KV)
  • জ্বালানি সংকটের কারণে দেশে এলাকাভিত্তিক লোডশেডিং শুরু হয় – ১৯ জুলাই ২০২২
  • বাগেরহাটের মোংলায় ৫৫ মেগাওয়াট ক্ষমতার বায়ুবিদ্যুৎ কেন্দ্র নির্মাণে মোংলা গ্রিন পাওয়ার লিমিটেডের সঙ্গে চুক্তি করে বিদ্যুৎ উন্নয়ন বোর্ড (BPDB) CA Oct-22 p-4
  • খুলনার রামপালে নির্মিত মৈত্রী বিদ্যুৎকেন্দ্রটির ইউনিট-১ ভার্চুয়ালি উদ্বোধন করা হয় ৬ সেপ্টেম্বর ২০২২। CA Oct-22 p-4, 6
  • রামপাল তাপবিদ্যুৎ কেন্দ্রর উৎপাদন ক্ষমতা ১৩২০ মেগাওয়াট। CA Oct-22 p-6
  • ৪ অক্টোবর ২০২২ বাংলাদেশের ইতিহাসে দ্বিতীয় সর্বোচ্চ ব্ল্যাক আউটের ঘটনা ঘটে। সেদিন দুপুর ২টা ৪ মিনিটে বিদ্যুৎ চলে যায়। বড় রকমের ব্ল্যাকআউটের মুখে পড়ে বাংলাদেশের অর্ধেক অঞ্চল।
  • রূপপুর পারমাণবিক বিদ্যুৎকেন্দ্রের দ্বিতীয় ইউনিটের চুল্লি (রিঅ্যাক্টর প্রেসার ভেসেল) স্থাপনের কাজ আনুষ্ঠানিকভাবে উদ্বোধন করা হয় – ১৯ অক্টোবর ২০২২ (CA Nov-22 p-5, 9)

বিদ্যুৎ উৎপাদনের লক্ষ্য:

  • ২০২১-এ ২৪,০০০ মেগাওয়াট
  • ২০৩০-এ ৪০,০০০ মেগাওয়াট
  • ২০২১ সালে নবায়নযোগ্য জ্বালানির লক্ষ্যমাত্রা মোট উৎপাদনের ১০%

বিদ্যুৎ ইতিহাস:

  • BPDB গঠিত হয় ১৯৭২ সালে।
  • BERC প্রতিষ্ঠিত হয় – ১৩ মার্চ, ২০০৩।
  • BAEC (পরমাণু শক্তি কমিশন) – ১৯৭৩।
  • ঢাকায় প্রথম বিদ্যুৎ সরবরাহ জেনারেটর – ৭ ডিসেম্বর, ১৯০১ সালে। জনৈক ব্রিটিশ ব্যক্তি।
  • ঢাকায় বাণিজ্যিকভাবে বিদ্যুৎ বিতরণ: ১৯১৯।

বিদ্যুৎ পরিসংখ্যান:

  • বিদ্যুৎ কেন্দ্র: ১৫৪টি (সূত্র: বিদ্যুৎ বিভাগ)
  • বায়ুবিদ্যুৎ কেন্দ্র: ৩টি (ফেনীর সোনাগাজী, কক্সবাজারের কুতুবদিয়া ও চট্টগ্রামের সন্দ্বীপ) (কক্সবাজারে নির্মাণাধীন আরো একটি CA May-22 p-19)
  • বিদ্যুৎ সুবিধাপ্রাপ্ত জনগোষ্ঠী: ১০০% (CA May-22 p-43)
  • মাথাপিছু বিদ্যুৎ উৎপাদন: ৬০৮.৭৬ কিলোওয়াট-ঘন্টা
  • বিদ্যুৎ উৎপাদন অঞ্চল – ৪টি। পূর্ব, পশ্চিম, উত্তর ও দক্ষিণ।
  • বিদ্যুৎ বিতরণ সংস্থা: ৬টি (স্বায়ত্তশাসিত ৫টি, সরকারি ১টি)
  • বিদ্যুৎ সঞ্চালন সংস্থা: ১টি
  • বিদ্যুৎ উৎপাদন সংস্থা: ৭টি
  • পল্লীবিদ্যুৎ সমিতি: ৮০টি
  • শতভাগ বিদ্যুতায়িত উপজেলা: সব উপজেলা।

বিদ্যুৎ সংক্রান্ত প্রথম/বড় যা কিছু:

  • ঢাকায় প্রথম বিদ্যুৎ সরবরাহ জেনারেটর – ৭ ডিসেম্বর, ১৯০১ সালে। জনৈক ব্রিটিশ ব্যক্তি।
  • জাতীয় গ্রিডে যুক্ত প্রথম সৌরবিদ্যুৎ কেন্দ্র: সরিষাবাড়ি, জামালপুর
  • সবচে বড় বিদ্যুৎকেন্দ্র: পায়রা তাপবিদ্যুৎ কেন্দ্র, পটুয়াখালী (১৩২০ মেগাওয়াট)
  • কয়লাভিত্তিক সবচে বড় বিদ্যুৎকেন্দ্র: পায়রা তাপবিদ্যুৎ কেন্দ্র, পটুয়াখালী (১৩২০ মেগাওয়াট)
  • কয়লাভিত্তিক প্রথম বিদ্যুৎকেন্দ্র: বড়পুকুরিয়া তাপবিদ্যুৎ কেন্দ্র, দিনাজপুর
  • প্রথম বেসরকারি বিদ্যুৎকেন্দ্র: খুলনায়
  • দেশের একমাত্র বার্জমাউন্টেড বিদ্যুৎকেন্দ্র: ভৈরব, খুলনা (১ম বেসরকারি বিদ্যুৎকেন্দ্র)
  • একমাত্র ভাসমান সৌরবিদ্যুৎ কেন্দ্র: মংলা, বাগেরহাট (50MW)
  • প্রথম জলবিদ্যুৎ কেন্দ্র: কর্ণফুলী পানিবিদ্যুৎ কেন্দ্র, কাপ্তাই, রাঙ্গামাটি
  • প্রথম ও একমাত্র পারমাণবিক বিদ্যুৎকেন্দ্র: রূপপুর পারমাণবিক বিদ্যুৎ কেন্দ্র, পাবনা (2400MW)
  • প্রথম বায়ুবিদ্যুৎ কেন্দ্র: ফেনীর সোনাগাজীতে মুহুরী নদীর বাঁধ এলাকায়।
  • শতভাগ বিদ্যুতায়িত প্রথম জেলা: যশোর
  • প্রথম হাইব্রিড বিদ্যুৎকেন্দ্র: সোনাগাজী, ফেনী
  • প্রথম উপকেন্দ্র: টঙ্গী উপকেন্দ্র, ঢাকা।
  • প্রথম সঞ্চালন লাইন: 132KV
  • প্রথম স্থাপিত 400KV লাইন: মেঘনাঘাট-আমিনবাজার
  • প্রথম চালুকৃত 400KV লাইন: বিবিয়ানা-কালিয়াকৈর
  • দেশের প্রথম আইসোলেটেড গ্রিড: নোয়াখালীর হাতিয়া
  • দীর্ঘতম সঞ্চালন লাইন: খুলনা থেকে ভেড়ামারা, ৩৫৩ কিলোমিটার।
  • সাবমেরিন ক্যাবলের মাধ্যমে বিদ্যুৎপ্রাপ্ত প্রথম উপজেলা/জনপদ – চট্টগ্রামের সন্দ্বীপ উপজেলা।

শতভাগ বিদ্যুতায়িত বাংলাদেশ:

“বাংলা একাডেমি আধুনিক বাংলা অভিধান”, পৃষ্ঠা ৯৭০-৯৭১ অনুসারে “বিদ্যুতায়ন” শব্দটি “বিদ্যুদায়ন” (Electrification) শব্দের অশুদ্ধ প্রচলিত রূপ। সে হিসেবে “বিদ্যুতায়িত” শব্দটির শুদ্ধরূপ হবে “বিদ্যুদায়িত”। যাই হোক, বাংলাদেশের শতভাগ বিদ্যুতায়ন সম্পর্কিত কিছু তথ্য নিচে দেয়া হলো।

  • প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা শতভাগ বিদ্যুতায়নের আনুষ্ঠানিক ঘোষণা দেন – ২১ মার্চ ২০২২। CA Apr-22 p-08, 20
  • শতভাগ বিদ্যুতায়িত প্রথম জেলা: যশোর
  • শতভাগ বিদ্যুতায়িত সর্বশেষ উপজেলা: রাঙ্গাবালী (পটুয়াখালী)। CA Apr-22 p-10
  • শতভাগ বিদ্যুতায়নের উদ্দেশ্যে সাবমেরিন ক্যাবলের মাধ্যমে যেসব দ্বীপ বা চরাঞ্চলে বিদ্যুৎ সরবরাহ করা হয়েছে: চর সোনারামপুর (আশুগঞ্জ), রাঙ্গাবালী, মনপুরা, সন্দ্বীপ, হাতিয়া, নিঝুম দ্বীপ ও কুতুবদিয়া। (সূত্র: একুশে টেলিভিন – ETV)
শেয়ার, কমেন্ট, মেইল বা প্রিন্ট করুন

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।